Monday, January 9, 2017

পার্বতীপুরে প্রধান শি¶কের ফাঁদ থেকে সহকারী শি¶িকা হীরা বাঁচতে চায়



পার্বতীপুর থেকে মোঃ মোক্তার“জ্জামান মোক্তার ঃ স্কুল প্রতিষ্ঠা লগ্ন থেকে প্রধান শি¶ক আমার উপর শারিরীক ও মানসিকভাবে আত্যাচার চালিয়ে আসছে। প্রতিকার হিসাবে কারো কাছে বিচার পায়নি।  ওনি আমাকে ঘরের বউয়ের মত ব্যবহার করতে চেয়েছে। উনি ও সরকারী চাকুরি করেন আমি ও সরকারী চাকুরি করি অথচ আমার নামে বিভিন্ন পেপার-পত্রিকায় মিথ্যা অপবাদ দিয়ে আসছে। কান্না বিগলিত কন্ঠে এ কথাগুলো বলছিল পার্বতীপুর উপজেলার ১০ নং হরিরামপুর ইউনিয়নের মৌলভীর ডাঙ্গা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শি¶িকা রেবেকা খানম হীরা। তার অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, প্রধান শি¶ক খন্দকার হাবিবুর রহমান স্কুল চলাকালীন সময়ে বিভিন্নভাবে ভয়-ভীতি ও জিম্মির মুখে শারিরীক ও মানসিকভাবে দীর্ঘ দিন যাবত অত্যাচার চালিয়ে আসছে। কারণ স্কুল কমিটি প্রধান শি¶কের মনগড়া নিজ¯^ লোক। কমিটির সভাপতি বাকের সাহেব কে ঘটনাগুলি বারবার প্রধান শি¶কের কূ-প্র¯—াবের কথা জানিয়েছি,। তিনি শুধু বলে বিষয়টি দেখছি বলে এড়িয়ে যায়। সভাপতি সাহেব হাই স্কুলের একজন সহকারী শি¶ক। আমার ঘটনা স্কুলের সকল শি¶ক ও অভিভাবকরাও জানে।চেয়ারম্যান,মেম্বারকেও জানিয়েছি। শেষমেষ গত ২১/০৮/১৬ ইং তারিখে পার্বতীপুর উপজেলা শি¶া অফিসার বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ পেশ করি। এরেই প্রে¶িতে গত ৩০/০৮/১৬ইং তারিখেশি¶াঅফিসারআখতার“জ্জামান স্যার ঘটনাটি তদš— করতে আসেন। কিন্তু উনি আমার কথা কোনটাই বিশ্বাস না করে ,উল্টা আমাকে ধমক দিয়ে বলেন বেশী বাড়াবাড়ী করবেন না চাকুরী খেয়ে ফেলবো। এ রকম দু’চারটার চাকুরী খেয়ে ফেলছি। আমি ভয়ে উনার নিকট লিখিত আবেদন পত্রটি মুচেলিকা দিয়ে তুলে নিয়েছি।আমি মহিলা মানুষ এ ঘটনার ফলে আমার ¯^ামী আমাকে নিচ্ছেনা। এ ব্যাপারে কমিটির সভাপতি বাকের জানান আমি ঐ স্কুলের সভাপতি পৃর্বে ছিলাম এখন কে আছে বলতে পারছিনা নিজেকে ব্য¯— দেখিয়ে মোবাইল ফোন কেটে দেন।  ঐ স্কুলের জায়গার দাতার ছেলে এ এস এম শাহনেওয়াজ জানায় প্রধান শি¶ক স্কুলের অনিয়ম আর অর্থ আর্তসাৎ এর পাহাড় করে রেখেছে । কোন দিন যদি সরকারীভাবে তদš— হয় তা  হলে প্রধান শি¶কের গোমর ফাঁস হবে ।  এলাকার হাফিজউদ্দীন বলেন শি¶িকা হীরা কে আমি ব্যক্তিগত ভাবে চিনি । উনার বাবা একজন আদর্শ  প্রধান শি¶ক ছিলেন ।  তারেই মেয়ে হীরা সে কখনো খারাপ হতে পারে না । ইউ’পি চেয়ারম্যান মাসুদার রহমান মাসুদ জানান ঘটনাটি দীর্ঘ দিনের আমি শুনেছি কিন্তু আমার কাছে সে ভাবে কেউ বলেনি।আর বিষয়টা শি¶া বিভাগের এটা উপজেলা শি¶া অফিসার সুষ্ঠ সমাধান দিতে পারে।এব্যাপারে প্রধান শি¶ক খন্দকার হাবিবুর রহমান নিজেকে সাংবাদিকতার পরিচয়ে জানান আপনারা এজগতে নতুন আসছেন এক কাকের মাংস কী আর এক কাক খায়।শি¶িকা হীরা নিজের দোষ নিজেই ¯^ীকার করে মুচেলিকা দিয়ে তার দরখা¯— তুলে নিয়েছে।আমি এখন স্কুলে জাতীয় সংগীতে ব্য¯— আছি (তখন সময় দুপুর ১২.৩০ মিনিট ছিল) বলে মোবাইল ফোন কেটে দেয়। ঐ এলাকার ১০ নং হরিরামপর ইউনিয়নের আ’লীগ সভাপতি শাহাবুদ্দীন শাহ্ জানান আমার বাড়ি এ খাগড়াবন এলাকায় । মৌলভীর ডাঙ্গা স্কুলটাও খাগড়াবন এলাকায় ।  আমি এ রা¯—া দিয়ে চলাফেরা করি। আর প্রধান শি¶ক হাবিবুর রহমান কে আমি চিনি । সে প্রধান শি¶ক হওয়ার আগে সাংবাদিকতা করছিল তা জানি কিন্তু প্রধান শি¶ক হবার পর তার আর সাংবাদিকতা থাকেনা । এরপরও তার পুরাতন বন্ধুদের নিয়ে বিভিন্ন পত্রিকায় লেখা পাঠায় । হীরা একজন প্রধান শি¶কের মেয়ে। আমার জানা মতে হীরা দুচরিত্রা মেয়ে নয়। হীরা ও হাবিবুরের মাঝে যে অনৈতিক আচরণের কথা উঠেছে তা  ভীতরের ব্যাপার, এটা আমার জানার কথা নয় । এরপর হীরা আমাকে জানায় যে শি¶া অফিসার এসেছে তদš— করতে । আমরা দেড় থেকে দু’ঘন্টা থাকলাম। তারপর শেষে জানতে পারলাম । শি¶া অফিসার হীরার কাছে যৌন হয়রানীর অভিযোগ সু-কৌশলে  মুচলিকা দিয়ে তুলে নিয়ে তার উদ্ধর্তন কর্তৃপ¶ের নিকট বদলীর বিষয়ে না লিখে বিভাগীয় তদšে—র র“জু করিয়েছেন। এতে করে শি¶া অফিসার হীরার প্রতি চাতুরি করেছেন, হাবিবুর রহমানের যোগসাজে। িিশ¶ অফিসার মানবাধিকার লংঘন করেছেন ।  আমি একজন মানবাধিকারের পরিচালক হিসাবে তীব্র প্রতিবাদ করছি।এছাড়াও পার্বতীপুর উপজেলা সহকারী শি¶া অফিসার মো¯—াফিজুর রহমানের ৭ সেপ্টেম্বর ২০১৬ ইং তদš— প্রতিবেদনে বলেছেন অতি সত্বর শি¶কদ্বয়
কে বদলী করা হলে বিদ্যালয়ের সার্বিক পরিবেশ বজায় থাকবে বলে জানান। এরপরও কে বা কারা হীরার মত অসহায় মেয়ের চাকুরী চ্যুত করার সড়যš— লিপ্ত আছে। আমি উর্দ্ধতন কর্তৃপ¶ের সু-দৃষ্ঠি দেয়ার জন্য আহবান করছি।


শেয়ার করুন

0 facebook: